সোমবার, ২৩ নভেম্বর ২০২০, ১২:০৭ পূর্বাহ্ন

হত্যার পরদিন সিনহার বাসায় যায় পুলিশ, তখনো জানায়নি মৃত্যুর কথা

উখিয়া সংবাদ ডেস্ক :
  • আপডেট টাইম :: রবিবার, ৯ আগস্ট, ২০২০
  • ১৯

তথ্যচিত্র বানানোর জন্য ঢাকার উত্তরার নিজ বাসা থেকে নিজের গাড়িতে করে গত ৩ জুলাই কক্সবাজারের টেকনাফে যান মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান। প্রায় প্রতিদিনই তিনি মুঠোফোনে মা নাসিমা আক্তার ও বড় বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌসের সঙ্গে কথা বলতেন। মা নাসিমা আক্তার রাতে কথা বলে ঘুমোতে যেতেন। সেদিনও (৩১ জুলাই) রাত ১১ টার সময় নাসিমা আক্তার সিনহার মোবাইলে ফোন দেন। পাঁচ থেকে সাতবার ফোন দেন। তখন ফোন বেজেই চলেছে।

নাসিমা আক্তার ছেলে সিনহার স্বভাব ভালো করেই জানেন। ফোন করলে যদি না ধরতে পারতেন, তাহলে ফোন আবার ব্যাক করতেন। নাসিমা ভেবেছিলেন, তাঁর ছেলে সিনহা হয়তো ব্যস্ত রয়েছেন, তাই ফোন ধরতে পারেননি। কাজের ব্যস্ততা শেষে নিশ্চয় সিনহা তাঁকে ফোন করবেন।

নাসিমা আক্তার যখন ছেলের ফোনের জন্য অপেক্ষা করছেন, তখন সিনহার গুলিবিদ্ধ লাশ পড়ে আছে কক্সবাজার হাসপাতালের মর্গে। সেদিন রাত ৯টা ২৫ মিনিটের পর টেকনাফের শামলাপুর তল্লাশিচৌকিতে মেজর (অব.) সিনহাকে গুলি করে হত্যা করে পুলিশ।

ওই দিন রাত ১২টার কিছু আগে একটা অপরিচিত নম্বর থেকে সিনহার মায়ের মোবাইলে ফোন আসে। তিনি তা ধরেন। নিজের পরিচয় না দিয়ে লোকটি নাসিমা আক্তারের কাছে সিনহা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য জানতে চান।মা নাসিমা আক্তারের সঙ্গে সিনহা। ছবি: সংগৃহীতমা নাসিমা আক্তারের সঙ্গে সিনহা। ছবি: সংগৃহীত

সিনহার মা নাসিমা আক্তার প্রথম আলোকে বলেন, ‘‘ঈদের আগের দিন রাত ১১ টার দিকে আমার ছেলেকে আমি ফোনে পাচ্ছিলাম না। তবে রাত ১২ টার আগে একটা নম্বর থেকে আমার কাছে ফোন আসে। আমাকে তিনি জিজ্ঞাসা করেন, ‘সিনহা আপনার কী হয়? জবাবে আমি বলি, ‘সিনহা আমার ছেলে।’ পরে আমার কাছে তিনি আরও জানতে চান, সিনহা কী করে? আমি তাঁকে বলি, ‘সিনহা আগে সেনাবাহিনীতে চাকরি করতেন। এখন কিছুই করে না। টুকটাক কাজ করে।’ তখন লোকটি জানতে চান, ‘সিনহার কয় ছেলে-মেয়ে? তখন তাঁকে আমি বলি, ‘সিনহাকে তো আমি ফোনে পাচ্ছি না। ও কোথায়? লোকটি তখন বললেন, ‘সিনহা, আছে। একটু দূরে আছে। আমি তাঁকে বললাম, ‘সিনহার কাছে মোবাইল ফোনটা দেন।’ একপর্যায়ে লোকটি আমাকে বললেন, আপনি আমার সঙ্গে এভাবে কথা বলছেন কেন? তখন তিনি নিজের পরিচয় দেন এবং বলেন, ‘আমি, টেকনাফ থানার ওসি।’

ওসি প্রদীপ তখন জানতে চান, ‘আমার ছেলে সিনহা কেন চাকরি কেন ছেড়ে দিয়েছে? আমি বলেছিলাম, ‘ছেলে চাকরি ছেড়ে দিয়েছে, সেটা সিনহার ইচ্ছা।’

টেকনাফ থানার ওসি যখন ফোন রেখে দিলেন, তখন ছেলে সিনহাকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় পড়েন নাসিমা আক্তার। তবে সিনহাকে যে হত্যা করে ফেলা হয়েছে, সেই বিষয়টি তাঁর কল্পনাতেও আসেনি। তবে নাসিমা আক্তার তখন ধরে নিয়েছেন, হয়তো কোনো কারণে তাঁর ছেলে আছে থানায়। তাঁর ছেলে সিনহার পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য টেকনাফ থানার ওসি তাঁকে ফোন দিয়েছেন।মা–বোনদের সঙ্গে সিনহা। ছবি: সংগৃহীতমা–বোনদের সঙ্গে সিনহা। ছবি: সংগৃহীত

তখন ফের নাসিমা আক্তার টেকনাফ থানার ওসির নম্বরে ফোন দেন। বহুবার কল দিলেও আর তিনি কল ধরেননি। তখন নিরুপায় হয়ে নাসিমা আক্তার সিনহার একজন বন্ধুকে ফোন দেন। যিনি সিনহার ব্যাচমেট ছিলেন। সেনাবাহিনীতে কর্মরত। সিনহার পরিচয় জানার জন্য টেকনাফ থানার ওসি যে তাঁকে ফোন দিয়েছিলেন, সেই বিষয়টি সেনাবাহিনীর ওই কর্মকর্তাকে জানান। সিনহার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে, সেই তথ্য তাঁকে জানান।

রাত গেল, কিন্তু ছেলে সিনহার কোনো খবর তিনি জানতে পারলেন না। ঈদের দিন সকালেও ছেলের মোবাইল ফোনে বারবার কল দেন। কিন্তু ফোন বন্ধ পান। আবার ঈদের দিন বলে ছেলের বন্ধুকে ফোন দিতে কিছুটা ইতস্তত বোধ করেন। তবে সকাল ১০ টার সময় সিনহার ব্যাচমেট সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা তাঁকে ফোন দেন। কিন্তু সিনহার মৃত্যুর তথ্য তাঁকে জানাননি। তবে তাঁর কাছ থেকে সিনহার বড় বোন শারমিন ও তাঁর স্বামী মো. শামসুজ্জামানের মোবাইল ফোন নম্বর নেন।

ঈদের দিন সকাল ১১ টার সময় দেখেন, বাসার সামনে তিনজন পুলিশ। এদের মধ্যে একজন উপপরিদর্শক (এসআই), দুজন কনস্টেবল। তাঁদের বাসার ভেতরে নিয়ে আসেন। উত্তরা-পশ্চিম থানার এসআই সুমন চন্দ্র দাস নাসিমা আক্তারের কাছে সিনহা সম্পর্কে নানা তথ্য জানতে চান। কিন্তু সিনহাকে যে পুলিশ গুলি করে মেরে ফেলেছে, সেই তথ্য জানাননি। বাসা থেকে সিনহার অনেকগুলো ছবি তুলে নিয়ে যান এসআই সুমন চন্দ্র দাস।মা নাসিমা আক্তারের সঙ্গে সিনহা। ছবি: সংগৃহীতমা নাসিমা আক্তারের সঙ্গে সিনহা। ছবি: সংগৃহীত

সিনহার মা নাসিমা আক্তার বলেন, ‘আমার ছেলেকে যে মেরে ফেলবে, সেটা আমার কল্পনার অতীত। যত দাগি আসামি হোক, একটা মানুষকে যে মেরে ফেলবে, এটা যে কোনো মানুষের কল্পনার অতীত। দাগি আসামি হলেও তো এভাবে চট করে কেউ কাউকে মেরে ফেলে না। আমি স্বপ্নও ভাবিনি আমার ছেলে মারা গেছে। আমার বাসায় ১১টার দিকে তিনজন পুলিশ আসে। আমার ছেলে কবে সেনাবাহিনীতে যোগ দেয়, কবে অবসরে গেছে, ইত্যাদি নানা তথ্য নেয়। আমার ছেলের ছবিও তুলে নিয়ে যায়। আমি ভেবেছি, আমার ছেলের পরিচয় নিশ্চিত হওয়ার জন্য বোধ হয় পুলিশ এসেছে। পুলিশ কিন্তু আমাকে জানায়নি, যে আমার ছেলেকে তাঁরা মেরে ফেলেছে।’

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহার বাসায় যাওয়ার তথ্য স্বীকার করে উত্তরা পশ্চিম থানার এসআই সুমন চন্দ্র দাস প্রথম আলোকে বলেন, ‘ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশে আমরা সিনহার বাসায় যাই। তাঁর মায়ের কাছ থেকে সিনহা সম্পর্কে তথ্য জেনে তা ঊর্ধ্বতন অফিসারদের জানিয়ে  দেই। সিনহা যে মারা গেছেন, সেই তথ্য আমি জানতাম। তবে সিনহার মায়ের বয়স বিবেচনায় সেই তথ্য তখন আমরা জানাইনি।’

খুন হওয়ার ২২ ঘণ্টা পর সিনহার মৃত্যুর খবর জানতে পারেন তাঁর মা নাসিমা আক্তার। সিনহার ব্যাচমেট, যিনি এখন বিদেশে মিশনে আছেন, তাঁর বোনের মাধ্যমে সেদিন সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় নাসিমা আক্তার সিনহার মৃত্যুর খবর জানেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 UkhiyaSangbad
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbaukhiyasa15