মঙ্গলবার, ২৪ নভেম্বর ২০২০, ০৪:৪৮ পূর্বাহ্ন

রোহিঙ্গাদের বোঝাতে পারেনি মিয়ানমারের প্রতিনিধিরা

ডেস্ক রিপোর্ট :
  • আপডেট টাইম :: বুধবার, ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৯
  • ৬০

প্রত্যাবাসনের বিষয়ে রোহিঙ্গাদের বোঝাতে তৃতীয় বারের মতো কক্সবাজারের রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শনে এসেছেন মিয়ানমারের ৯ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল। তাদের সঙ্গে রয়েছে আসিয়ানের আরও সাত সদস্য। বুধবার (১৮ ডিসেম্বর) দুপুরে উখিয়ার এক্সটেনশন ক্যাম্প-৪ এ রোহিঙ্গা নেতাদের সঙ্গে সংলাপ করেন তারা। তবে রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরাতে রাজি করতে পারেনি প্রতিনিধি দলের সদস্যরা। রোহিঙ্গারা বলছেন, বৈঠকে পুরনো ক্যাসেট নতুন করে বাজিয়ে শুনিয়েছে মিয়ানমার।

মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক ও অর্থনৈতিক বিভাগের মহাপরিচালক সিন আয়ে এর নেতৃত্বে প্রতিনিধি দলটি ৪৭ রোহিঙ্গার সঙ্গে ক্যাম্প ইনচার্জের কার্যালয়ে বৈঠক করেন। সেখানে বাংলাদেশের শরণার্থী, ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মাহবুব আলম তালুকদারসহ জেলা প্রশাসন, আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক বিকেল ৪টার দিকে শেষ হয়।

বৈঠক উপস্থিত কয়েকজন রোহিঙ্গা জানান, নাগরিক অধিকার, ভিটে মাটি ফেরত ও নিরাপত্তার নিশ্চয়তা দিতে পারেননি মিয়ানমারের কর্মকর্তারা। বৈঠকে রোহিঙ্গাদের দেশে ফিরতে আহ্বান জানানো হলেও দাবি পূরণের আশ্বাস ছিল না। পুরনো কথা শোনানো হয়েছে কেবল।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের (এআরএসপিএইচ) এক নেতা বলেন, ‘মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর এখনও নির্যাতন চালাচ্ছে সেনারা। রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেওয়ার ইচ্ছে নেই তাদের। এ বৈঠক মিয়ানমারের লোক দেখানো মাত্র। বৈঠকে আমাদের দাবি ছিল, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের নাগরিকত্ব, কেড়ে নেওয়া জমি ফেরত ও নিরাপত্তার নিশ্চিয়তা দিতে হবে। পাশাপাশি ফেরার আগে রোহিঙ্গাদের একটি প্রতিনিধি দল রাখাইন রাজ্যের পরিস্থিতি দেখতে যেতে চায়। কিন্তু মিয়ানমারের প্রতিনিধিদের কথায় আমরা কেউই সন্তুষ্ট হতে পারিনি। আগামীকাল বৈঠকে কী হয় দেখা যাক।’

বৈঠকে থাকা নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক রোহিঙ্গা নেতা বলেন, ‘যুগ যুগ ধরে রোহিঙ্গাদের ওপর ধারাবাহিকভাবে নির্যাতন চালিয়ে আসছে মিয়ানমার সরকার। আমরা এখন তাদের আর বিশ্বাস করতে পারি না। তাই আমরা আন্তর্জাতিক নিরাপত্তার কথা বলেছি বৈঠকে।’

প্রতিনিধি দলের প্রধান মিয়ানমারের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থা ও অর্থনীতি বিভাগের পরিচালক সিন আয়ে বলেন, ‘প্রত্যাবাসন ইস্যুতে রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আলোচনা চালু থাকবে।’

প্রতিনিধি দলটি কক্সবাজার অবস্থান করছে। আগামীকাল বৃহস্পতিবারও রোহিঙ্গাদের সঙ্গে আরেক দফায় বৈঠক করার কথা রয়েছে এই দলের সদস্যদের।

ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার (অতিরিক্ত) শামসুদ্দৌজা নয়ন বলেন, ‘বৈঠকে রোহিঙ্গা ও মিয়ানমার প্রতিনিধি দলের মধ্যে দীর্ঘক্ষণ আলোচনা হয়েছে। এসময় রোহিঙ্গারা নাগরিকত্ব, নিরাপত্তার নিশ্চিয়তাসহ তাদের দাবি কথা তুলে ধরেন। এতে মিয়ানমার প্রতিনিধি দল জানান, নাগরিকত্ব বিষয়ে রোহিঙ্গারা বৈধ কাগজপত্র নিয়ে আবেদন করলে বিবেচনা করা হবে। এছাড়া জাতিসংঘের মাধ্যমে দাবি তুললে নিরাপত্তা জোরদার করার আশ্বাস দেয় মিয়ানমার প্রতিনিধি দল।’

এর আগে চলতি বছরের ২৭ জুলাই মিয়ানমারের পররাষ্ট্র সচিব মিন্ট থোয়ে’র নেতৃত্বে ১৯ সদস্যের একটি উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গা ক্যাম্প সফর করেন। এসময় আসিয়ানের প্রতিনিধি দলটিও সঙ্গে ছিল। সে সময়ে রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন ইস্যুতে রোহিঙ্গাদের যৌথ সংলাপে অংশ নেয়।

এছাড়াও ২০১৮ সালের ১১ এপ্রিল মিয়ানমারের সমাজকল্যান মন্ত্রী উইন মিয়াট আয়ে’র নেতৃত্বে আরও একটি প্রতিনিধি দল রোহিঙ্গাদের সঙ্গে কথা বলতে উখিয়ার কুতুপালং রোহিঙ্গা ক্যাম্পে এসেছিলেন।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে ২৫ আগস্ট রাখাইনের ৩০টি নিরাপত্তা চৌকিতে একযোগে হামলার ঘটনাকে কেন্দ্র করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদের ওপর জাতিগত নিধন শুরু করে। ফলে প্রাণ বাঁচাতে অন্তত সাড়ে সাত লাখ রোহিঙ্গা পালিয়ে এসে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়। এর আগে বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাসহ উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি শিবিরে ১১ লাখের বেশি রোহিঙ্গা অবস্থান করছে। জাতিসংঘের তথ্য অনুযায়ী এই সংখ্যা ১১ লাখ ৮৫ হাজার ৫৫৭ জন।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 UkhiyaSangbad
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbaukhiyasa15