সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০২:২৫ অপরাহ্ন

যাচাই বাছাই করেই রাজাকারের তালিকা প্রকাশ করা হবে

ডেস্ক রিপোর্ট :
  • আপডেট টাইম :: বৃহস্পতিবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৪৯

স্থগিত হওয়া রাজাকারের বিতর্কিত তালিকার জন্য মেম্বার চেয়ারম্যানদের দোষারোপ করেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক। তিনি বলেছেন, মেম্বার চেয়ারম্যানরা যাচাই-বাছাই না করে নাম দেওয়ায় বিভ্রান্তি সৃষ্টি হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৬ জানুয়ারি) বিকালে সংসদে মন্ত্রীদের জন্য নির্ধারিত প্রশ্নোত্তর পর্বে একাধিক সংসদ সদস্যের প্রশ্নে তোপের মুখে পড়েন মন্ত্রী। এ সময় সভাপতিত্ব করেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বলেন, ভুলভ্রান্তি ছিল বলেই দুঃখ প্রকাশ করে রাজাকারের তালিকা প্রত্যাহার করেছি। রাজাকারের তালিকায় যাদের নাম আছে তারা সক্রিয় ছিল কি না তা শুধু যাচাই করার ব্যাপার। সমস্ত ডকুমেন্টারি প্রমাণাদি আছে। আমরা সব ডকুমেন্ট চেক করব। সমস্যাটা হচ্ছে, ওই সময় মেম্বার চেয়ারম্যান সাহেবদের কাছে নাম চাওয়া হয়েছিল। তারা যাচাই-বাছাই না করে অনেকের নাম দিয়ে দিয়েছে হয়তো। সেজন্যই এই বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়েছে।

সংসদ সদস্য মোয়াজ্জেম হোসেন রতন তার প্রশ্নে বলেন, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নয়, এ কথা সরাসরি বলা যায় না। তথ্য যার কাছ থেকেই নেন, সেই তথ্য সঠিক আছে কি না সেটা দেখার দায়িত্ব এই মন্ত্রণালয়ের ওপরেই পড়ে। কিছু কিছু জায়গায় অসংগতির কারণে মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তি, আমরা অত্যন্ত ব্যথিত হয়েছি। প্রকৃত রাজাকাররা এই লিস্টে আসেনি।

জবাবে মন্ত্রী বলেন, আমি আগেই দুঃখ প্রকাশ করে রাজাকারের তালিকা প্রত্যাহার করেছি। ভবিষ্যতে যাতে আর ভুলত্রুটির পুনরাবৃত্তি না হয় সেই জন্য আমরা সকলের সহযোগিতা নেব এবং সম্পূর্ণরূপে যাচাই বাছাই করেই তালিকা প্রকাশ করব।

মো. ফরিদুল হক খান তার প্রশ্নে বলেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী অনুগ্রহ করিয়া বলিবেন কী, রাজাকারের তালিকা তৈরিতে কারও গাফিলতি আছে কি না এবং দায়ী ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণে সরকার কোনো উদ্যোগ নেবে কি না?

জবাবে মুক্তিযুদ্ধ মন্ত্রী বলেন, রাজাকারের তালিকা মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় থেকে প্রণয়ন করা হয়নি। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের চাহিদার প্রেক্ষিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, জননিরাপত্তা বিভাগ হতে ১ হাজার ৭৮৫ জন রাজাকার, আল বদর, আল শামস এবং স্বাধীনতা বিরোধীদের একটি তালিকা এ মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করে। প্রাপ্ত তালিকা হুবহু মুক্তিযুদ্ধ বিষয় মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হয়। যেহেতু মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় উক্ত তালিকা প্রস্তুত করেনি সেহেতু প্রশ্নে উত্থাপিত বিষয়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারে।

মন্ত্রীর জবাবে অসন্তোষ প্রকাশ করে সংসদ সদস্য মেজর অব রফিকুল ইসলাম বলেন, রাজাকারের তালিকা করার প্রশ্নেই ভুল, আমাদের সিদ্ধান্ত ছিল আমরা কোনো তালিকা তৈরি করব না। আমাদের লক্ষ্য ছিল যারা স্বাধীনতার বিরোধিতা করেছে তাদের যে তালিকা বিদ্যমান আছে সেই তালিকা প্রকাশ করা হবে। সংসদীয় কমিটিতেও সেই সিদ্ধান্ত ছিল। মন্ত্রী বলেছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় করেনি, করেছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, এই কথার সাথে দ্বিমত পোষণ করছি, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় কী দিয়েছে সেটা আমরা জানি না, যেহেতু মালিক স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাই তারাই তো প্রকাশ করতে পারত, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী কেন সেটা প্রকাশ করলেন? উনি সঠিক তালিকা প্রকাশ করতে পারেননি, উনি পারবেনও না।

নিউজটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
© All rights reserved © 2019 UkhiyaSangbad
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themesbaukhiyasa15